ঢাকা ০৩:৩৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নওগাঁর পত্নীতলায় সড়ক দূর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩

নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলায় যাত্রীবাহী বাস ও ব্যাটারি চালিত অটোভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে মারা যান শানজিদা খাতুন (২৬)।

এ সময় তাঁর মা শরিফা খাতুন (৪৮)সহ আরও পাঁচজন গুরুত্বর আহত হন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শরিফাসহ আরও দুইজনের মৃত্যু হয়। এ দুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে তিনজনে দাঁড়িয়েছে।

শুক্রবার দিবাগত রাতে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আহত শানজিদার মা শরিফা খাতুন এবং অটোভ্যান চালক মিজানুর রহমান’র (৪৫) মৃত্যু হয়।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও পরিবারের সদস্যরা তাঁদের মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করেছেন।

রামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত ব্যক্তিরা হলেন, নিহত শানজিদার ছেলে সোহান (৬), নিহত শরিফা খাতুনের ছেলে শামীম রেজা (৩০) ও মহাদেবপুর উপজেলার নাটুয়াপাড়া গ্রামের আরিফুজ্জামান (১৫)।

শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার নজিপুর-ধামইরহাট সড়কের আমবাটি মোড় এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।
দুর্ঘটনায় তিনজনের মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করে পত্নীতলা উপজেলার পাটিচরা ইউপি চেয়ারম্যান সবেদুল ইসলাম (রনি) বলেন, শানজিদা, তাঁর শিশু সন্তান, মা ও ভাই অটো চার্জার ভ্যানে চড়ে পাহাড়কাটা গ্রাম থেকে নজিপুর পৌরসভা বাজারে যাচ্ছিলেন।

পথে নজিপুর-ধামইরহাট সড়কের আমবাটি মোড় এলাকায় ধামইরহাটের দিকে যাওয়া একটি যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে তাদের ভ্যানের সংঘর্ষ হলে একই পরিবারের চারজনসহ ছয়জন গুরুত্বর আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে পত্নীতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শানজিদা খাতুনের মৃত্যু হয়।

আহত অপর চারজনের অবস্থাও গুরুত্বর হওয়ায় তাঁদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও দুইজনের মৃত্যু হয়।

পত্নীতলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব বলেন, এ ঘটনায় প্রথমে একজনের মৃত্যু হয়। রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও দুইজনের মৃত্যু হয়। দুর্ঘটনাকবলিত বাসটি জব্দ করে থানা হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

তবে চালক ও তার সহকারী পলাতক রয়েছে। এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে।

আলিশান চাল, নওগাঁ

বিজ্ঞাপন দিন

নওগাঁর পত্নীতলায় সড়ক দূর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩

আপডেট সময় ০১:৩২:০৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলায় যাত্রীবাহী বাস ও ব্যাটারি চালিত অটোভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে মারা যান শানজিদা খাতুন (২৬)।

এ সময় তাঁর মা শরিফা খাতুন (৪৮)সহ আরও পাঁচজন গুরুত্বর আহত হন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শরিফাসহ আরও দুইজনের মৃত্যু হয়। এ দুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে তিনজনে দাঁড়িয়েছে।

শুক্রবার দিবাগত রাতে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আহত শানজিদার মা শরিফা খাতুন এবং অটোভ্যান চালক মিজানুর রহমান’র (৪৫) মৃত্যু হয়।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও পরিবারের সদস্যরা তাঁদের মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করেছেন।

রামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত ব্যক্তিরা হলেন, নিহত শানজিদার ছেলে সোহান (৬), নিহত শরিফা খাতুনের ছেলে শামীম রেজা (৩০) ও মহাদেবপুর উপজেলার নাটুয়াপাড়া গ্রামের আরিফুজ্জামান (১৫)।

শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলার নজিপুর-ধামইরহাট সড়কের আমবাটি মোড় এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।
দুর্ঘটনায় তিনজনের মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করে পত্নীতলা উপজেলার পাটিচরা ইউপি চেয়ারম্যান সবেদুল ইসলাম (রনি) বলেন, শানজিদা, তাঁর শিশু সন্তান, মা ও ভাই অটো চার্জার ভ্যানে চড়ে পাহাড়কাটা গ্রাম থেকে নজিপুর পৌরসভা বাজারে যাচ্ছিলেন।

পথে নজিপুর-ধামইরহাট সড়কের আমবাটি মোড় এলাকায় ধামইরহাটের দিকে যাওয়া একটি যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে তাদের ভ্যানের সংঘর্ষ হলে একই পরিবারের চারজনসহ ছয়জন গুরুত্বর আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে পত্নীতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শানজিদা খাতুনের মৃত্যু হয়।

আহত অপর চারজনের অবস্থাও গুরুত্বর হওয়ায় তাঁদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও দুইজনের মৃত্যু হয়।

পত্নীতলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব বলেন, এ ঘটনায় প্রথমে একজনের মৃত্যু হয়। রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও দুইজনের মৃত্যু হয়। দুর্ঘটনাকবলিত বাসটি জব্দ করে থানা হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

তবে চালক ও তার সহকারী পলাতক রয়েছে। এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে।