ঢাকা ১০:১২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রেমের টান: জার্মান তরুণী গোপালগঞ্জে এসে বসলেন বিয়ের পিঁড়িতে

প্রেমের টানে সুদূর জার্মানি থেকে এক তরুণী ছুটে এসেছেন বাংলাদেশের গোপালগঞ্জে

তাঁর নাম জেনিফার স্ট্রায়ার্স (১৮)। জেলার কাশিয়ানী উপজেলার জোতকুরো গ্রামের ইতালিপ্রবাসী রবিউল ইসলামের ছেলে চয়ন ইসলামের (২২) ভালোবাসায় মুগ্ধ হয়ে ছুটে আসেন তিনি।

সোমবার দুপুরে গোপালগঞ্জে আদালতে নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে এই জুটির মধ্যে বিয়ে সম্পন্ন হয়।

এর আগে ১৭ ফেব্রুয়ারি রাতে জার্মান থেকে হজরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে নামেন জেনিফার। বিমানবন্দরে চয়ন ইসলাম ও তাঁর স্বজনেরা তাঁকে স্বাগত জানান।

চয়ন ইসলাম বলেন , ১৭ ফেব্রুয়ারি রাতে সড়কপথে গোপালগঞ্জে এসে শহরের মডেল স্কুল রোডে তাঁর এক আত্মীয়ের বাসায় ওঠেন। এ সময় জার্মান তরুণীকে ফুল দিয়ে বরণ করেন চয়নের মা ঝর্ণা বেগম। খবর পেয়ে এই জুটিকে দেখতে প্রতিবেশীরা ওই বাড়িতে ভিড় করেন।

জেনিফার স্ট্রায়ার্সের দুই বোন, বাবা জোসেফ স্ট্রয়ার্স ও মা ইসাবেলা স্ট্রায়ার্স জার্মানির বাইলেফেল্ডে বসবাস করেন। বোনদের মধ্যে দ্বিতীয় জেনিফার।

সম্পর্ক শুরুর বর্ণনা দিয়ে চয়ন ইসলাম  বলেন, পাঁচ বছর আগে জার্মানিতে ভাষা শিক্ষার একটি কোর্স করার সময় তাঁর সঙ্গে জেনিফারের পরিচয় হয়। সেখান থেকে দুজনের মধ্যে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। একপর্যায় তাঁদের সম্পর্ক প্রেমে রূপ নেয়। ২০২২ সালের ১০ মার্চ তিনি বাংলাদেশে ফিরে আসেন। এরপর থেকে তাঁদের মধ্যে অনলাইনে যোগাযোগ হতো। সম্প্রতি জেনিফার বাংলাদেশে আসার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেন। পরে দুজনের সম্মতিতে আমরা বিয়ে করি।’

বাংলাদেশের মানুষের ভালোবাসা ও আতিথেয়তায় মুগ্ধ এই জার্মান তরুণী বলেন, শাশুড়ি, ননদসহ আত্মীয়রা তাঁকে যেভাবে কাছে টেনে নিয়েছেন, তা কল্পনাতীত। এসব তাঁর বাবা-মাকে জানিয়েছেন। তাঁরাও খুব খুশি হয়েছেন।

ছেলের বউকে খুব পছন্দ হয়েছে জেনিফারের শাশুড়ি ঝর্ণা বেগমের। তিনি  জানান, ‘অল্প সময়ের মধ্যে জেনিফার আমাদের আপন করে নিয়েছে। দু-এক দিনের মধ্যে ওকে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাব।’

ট্যাগস

আলিশান চাল, নওগাঁ

বিজ্ঞাপন দিন

প্রেমের টান: জার্মান তরুণী গোপালগঞ্জে এসে বসলেন বিয়ের পিঁড়িতে

আপডেট সময় ০৯:৩৫:২০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

প্রেমের টানে সুদূর জার্মানি থেকে এক তরুণী ছুটে এসেছেন বাংলাদেশের গোপালগঞ্জে

তাঁর নাম জেনিফার স্ট্রায়ার্স (১৮)। জেলার কাশিয়ানী উপজেলার জোতকুরো গ্রামের ইতালিপ্রবাসী রবিউল ইসলামের ছেলে চয়ন ইসলামের (২২) ভালোবাসায় মুগ্ধ হয়ে ছুটে আসেন তিনি।

সোমবার দুপুরে গোপালগঞ্জে আদালতে নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে এই জুটির মধ্যে বিয়ে সম্পন্ন হয়।

এর আগে ১৭ ফেব্রুয়ারি রাতে জার্মান থেকে হজরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে নামেন জেনিফার। বিমানবন্দরে চয়ন ইসলাম ও তাঁর স্বজনেরা তাঁকে স্বাগত জানান।

চয়ন ইসলাম বলেন , ১৭ ফেব্রুয়ারি রাতে সড়কপথে গোপালগঞ্জে এসে শহরের মডেল স্কুল রোডে তাঁর এক আত্মীয়ের বাসায় ওঠেন। এ সময় জার্মান তরুণীকে ফুল দিয়ে বরণ করেন চয়নের মা ঝর্ণা বেগম। খবর পেয়ে এই জুটিকে দেখতে প্রতিবেশীরা ওই বাড়িতে ভিড় করেন।

জেনিফার স্ট্রায়ার্সের দুই বোন, বাবা জোসেফ স্ট্রয়ার্স ও মা ইসাবেলা স্ট্রায়ার্স জার্মানির বাইলেফেল্ডে বসবাস করেন। বোনদের মধ্যে দ্বিতীয় জেনিফার।

সম্পর্ক শুরুর বর্ণনা দিয়ে চয়ন ইসলাম  বলেন, পাঁচ বছর আগে জার্মানিতে ভাষা শিক্ষার একটি কোর্স করার সময় তাঁর সঙ্গে জেনিফারের পরিচয় হয়। সেখান থেকে দুজনের মধ্যে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। একপর্যায় তাঁদের সম্পর্ক প্রেমে রূপ নেয়। ২০২২ সালের ১০ মার্চ তিনি বাংলাদেশে ফিরে আসেন। এরপর থেকে তাঁদের মধ্যে অনলাইনে যোগাযোগ হতো। সম্প্রতি জেনিফার বাংলাদেশে আসার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেন। পরে দুজনের সম্মতিতে আমরা বিয়ে করি।’

বাংলাদেশের মানুষের ভালোবাসা ও আতিথেয়তায় মুগ্ধ এই জার্মান তরুণী বলেন, শাশুড়ি, ননদসহ আত্মীয়রা তাঁকে যেভাবে কাছে টেনে নিয়েছেন, তা কল্পনাতীত। এসব তাঁর বাবা-মাকে জানিয়েছেন। তাঁরাও খুব খুশি হয়েছেন।

ছেলের বউকে খুব পছন্দ হয়েছে জেনিফারের শাশুড়ি ঝর্ণা বেগমের। তিনি  জানান, ‘অল্প সময়ের মধ্যে জেনিফার আমাদের আপন করে নিয়েছে। দু-এক দিনের মধ্যে ওকে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাব।’