ঢাকা ০৬:২৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পরকীয়ার জেরে স্ত্রী-সন্তানকে হত্যার অভিযোগ

প্রতীকী ছবি

নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ  নোয়াখালী সদর উপজেলায় পরকীয়ার জেরে স্ত্রী বিবি মরিয়ম (২৬) শিশু সন্তান মাইমুনা আক্তারকে (৩ মাস) হত্যার অভিযোগ উঠেছে আকবর আলী বাবর (৩০) নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে।

ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত আকবর আলী ও তার বাড়ির লোকজন পলাতক রয়েছে।

শুক্রবার (২৯ মে) বেলা ১১টার দিকে উপজেলার নোয়াখালী ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সল্লা গ্রামের মুন্না মিয়ার বাগান বাড়ির পুকুর পাড়ের একটি গাছ থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় মরিয়ম ও পাশের একটি পুকুর থেকে শিশু মাইমুনার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত মরিয়ম জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চরএলাহী ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের গাঙচিল গ্রামের আবুল কাসেম মোল্লার মেয়ে। সে তিন সন্তানের জননী।

পলাতক স্বামী আকবর আলী বাবর নোয়াখালী ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সল্লা গ্রামের মৃত সোলমানের ছেলে। তিনি স্থানীয় এলাকায় কৃষিকাজ করেন।

নিহতের ভাই আব্দুল করিম জানান, গত কয়েক মাস ধরে মরিয়মের স্বামী বাবর বাড়ির পাশের বাড়ির একটি মেয়ের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন।

এ নিয়ে তাদের সংসারে প্রায় দাম্পত্য কলহ চলছিল। এ ব্যাপারে কয়েকবার সামাজিকভাবে সালিশও হয়েছে।

এর জেরে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন মরিয়মকে গভীর রাতে হত্যা করে গাছে ঝুলিয়ে রাখে এবং শিশু সন্তানকে হত্যা করে পুকুরে ফেলে দেয়।

সুধারাম থানার পরিদর্শক (তদন্ত) টমাস বড়ুয়া জানান, তাৎক্ষণিকভাবে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যায়নি। তবে নিহতের পরিবার দাবি পরকীয়ার জেরে স্বামী এবং তার পরিবার এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।

মরদেহ দুইটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছ। এটি হত্যা না আত্মহত্যা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে বিস্তারিত বলা যাবে।

ট্যাগস

আলিশান চাল, নওগাঁ

বিজ্ঞাপন দিন

পরকীয়ার জেরে স্ত্রী-সন্তানকে হত্যার অভিযোগ

আপডেট সময় ০৪:৫৪:৪২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০

নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ  নোয়াখালী সদর উপজেলায় পরকীয়ার জেরে স্ত্রী বিবি মরিয়ম (২৬) শিশু সন্তান মাইমুনা আক্তারকে (৩ মাস) হত্যার অভিযোগ উঠেছে আকবর আলী বাবর (৩০) নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে।

ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত আকবর আলী ও তার বাড়ির লোকজন পলাতক রয়েছে।

শুক্রবার (২৯ মে) বেলা ১১টার দিকে উপজেলার নোয়াখালী ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সল্লা গ্রামের মুন্না মিয়ার বাগান বাড়ির পুকুর পাড়ের একটি গাছ থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় মরিয়ম ও পাশের একটি পুকুর থেকে শিশু মাইমুনার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত মরিয়ম জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চরএলাহী ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের গাঙচিল গ্রামের আবুল কাসেম মোল্লার মেয়ে। সে তিন সন্তানের জননী।

পলাতক স্বামী আকবর আলী বাবর নোয়াখালী ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সল্লা গ্রামের মৃত সোলমানের ছেলে। তিনি স্থানীয় এলাকায় কৃষিকাজ করেন।

নিহতের ভাই আব্দুল করিম জানান, গত কয়েক মাস ধরে মরিয়মের স্বামী বাবর বাড়ির পাশের বাড়ির একটি মেয়ের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন।

এ নিয়ে তাদের সংসারে প্রায় দাম্পত্য কলহ চলছিল। এ ব্যাপারে কয়েকবার সামাজিকভাবে সালিশও হয়েছে।

এর জেরে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন মরিয়মকে গভীর রাতে হত্যা করে গাছে ঝুলিয়ে রাখে এবং শিশু সন্তানকে হত্যা করে পুকুরে ফেলে দেয়।

সুধারাম থানার পরিদর্শক (তদন্ত) টমাস বড়ুয়া জানান, তাৎক্ষণিকভাবে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যায়নি। তবে নিহতের পরিবার দাবি পরকীয়ার জেরে স্বামী এবং তার পরিবার এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।

মরদেহ দুইটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছ। এটি হত্যা না আত্মহত্যা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে বিস্তারিত বলা যাবে।