ঢাকা ১২:২৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দেশের মানুষকে সামনে রেখে এবারের বাজেট: অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা

অর্থনীতি ডেস্কঃ    অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, সাধারণত আমরা বাজেট দিয়ে থাকি সরকারি অর্থনৈতিক উন্নয়নকে প্রাধিকার দিয়ে। এবার সেটা করা হয়নি। এবারের বাজেট তৈরি করেছি দেশের মানুষকে সামনে রেখে। 

সোমবার (১৫ জুন) জাতীয় সংসদে চলতি ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেটের ওপর সমাপনী আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।ৎ

এর আগে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হয়।

অর্থমন্ত্রী বলেন, এবারের বাজেট তৈরি করেছি দেশের মানুষকে সামনে রেখে। এই করোনা পরিস্থিতিতে মানুষকে বাঁচাতে হবে।

সাধারণত আমরা বাজেট দিয়ে থাকি সরকারি অর্থনৈতিক উন্নয়নকে প্রাধিকার দিয়ে। এবার সেটা করা হয়নি। এবার মানুষকে প্রাধিকার দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, অন্যবার আমরা রেমিটেন্স অর্জন করি। এরপর সেটা খরচ করি। কিন্তু এবার রেমিটেন্স খরচ করব আগে। এরপর রেমিটেন্স অর্জন করব।

অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, বাজেটে আমরা যে জিডিপি লক্ষ্যমাত্রা দিয়েছি, সেই জিডিপি অর্জন করতে পারলে পুরো দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে তা সর্বোচ্চ হবে।

ট্যাগস

আলিশান চাল, নওগাঁ

বিজ্ঞাপন দিন

দেশের মানুষকে সামনে রেখে এবারের বাজেট: অর্থমন্ত্রী

আপডেট সময় ০৫:৩৪:১৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুন ২০২০

অর্থনীতি ডেস্কঃ    অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, সাধারণত আমরা বাজেট দিয়ে থাকি সরকারি অর্থনৈতিক উন্নয়নকে প্রাধিকার দিয়ে। এবার সেটা করা হয়নি। এবারের বাজেট তৈরি করেছি দেশের মানুষকে সামনে রেখে। 

সোমবার (১৫ জুন) জাতীয় সংসদে চলতি ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেটের ওপর সমাপনী আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।ৎ

এর আগে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হয়।

অর্থমন্ত্রী বলেন, এবারের বাজেট তৈরি করেছি দেশের মানুষকে সামনে রেখে। এই করোনা পরিস্থিতিতে মানুষকে বাঁচাতে হবে।

সাধারণত আমরা বাজেট দিয়ে থাকি সরকারি অর্থনৈতিক উন্নয়নকে প্রাধিকার দিয়ে। এবার সেটা করা হয়নি। এবার মানুষকে প্রাধিকার দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, অন্যবার আমরা রেমিটেন্স অর্জন করি। এরপর সেটা খরচ করি। কিন্তু এবার রেমিটেন্স খরচ করব আগে। এরপর রেমিটেন্স অর্জন করব।

অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, বাজেটে আমরা যে জিডিপি লক্ষ্যমাত্রা দিয়েছি, সেই জিডিপি অর্জন করতে পারলে পুরো দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে তা সর্বোচ্চ হবে।