ঢাকা ০৬:০১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কলেজ পড়ুয়া ২ ভাইয়ের ‘ফ্রি সবজি সরবরাহ

হিলি প্রতিনিধিঃ-প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস আতঙ্কে বিশ্ব। একই আতঙ্ক বাংলাদেশেও। এতে সবাই নিজ নিজ গৃহে অবস্থান করছেন।

আর এ অবস্থায় সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষরা পড়েছেন বিপাকে। ঘর থেকে বের হতে না পেরে খাদ্য সংকটে ভুগছে অনেক পরিবার।

এমন অবস্থায় ফ্রি সবজির দোকান নিয়ে বসেছেন দিনাজপুরে নবাবগঞ্জের গোলাপগঞ্জ ইউনিয়ানের জগন্নাথপুর গ্রামের ইয়াসিন আলীর দুই ছেলে আহসান হাবিব ও সাহাজুল ইসলাম। দেশের এমন পরিস্থিতিতে খেটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়াতে এমন উদ্যোগ নিয়েছেন দুই ভাই।

মানবতার নজির তৈরি করেছে দু ভাই

জানা গেছে, নবাবগঞ্জ বাজারে আহসান ও সাহাজুল ইসলামের ছোট কসমেটিক দোকান রয়েছে। এই দোকানের ওপর চলে তাদের সংসার। পাশাপাশি নবাবগঞ্জ কলেজে দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়াশোনা করছেন তারা।

আহসান ও সাহাজুল ইসলাম জানান,‘আমরা আমাদের নিজ উদ্যোগে আমাদের গ্রামে সব মেহনতি মানুষের মধ্যে প্রতিদিন বিনামূল্যে কাঁচা বাজার (শাকসবজি) বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছি।

যত দিন দেশের এই করুণ অবস্থা চলতে থাকবে, ততদিন আমাদের এই কার্যক্রম চলতে থাকবে। যারা অভাবগ্রস্থ আছেন, লজ্জা না করে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। আপনাদের গোপনীয়তা রেখে আমরা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেব।’ ঘর থেকে বের হতে সরকার থেকে নিষেধ আছে। তাই এই গরিব মানুষদের কথা ভেবে আমরা দুই ভাই ও বাবা মিলে ফ্রি শাকসবজির দোকান দিয়েছি।

তিনি জানান, প্রতিদিন বিরামপুর বাজার থেকে এক হাজার টাকার শাকসবজি কিনে এনে বিকাল ৩টায় দোকানে বসছি। এতে অনেকেই উপকৃত হচ্ছেন।

 

ট্যাগস

আলিশান চাল, নওগাঁ

বিজ্ঞাপন দিন

কলেজ পড়ুয়া ২ ভাইয়ের ‘ফ্রি সবজি সরবরাহ

আপডেট সময় ০৫:০২:২৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ এপ্রিল ২০২০

হিলি প্রতিনিধিঃ-প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস আতঙ্কে বিশ্ব। একই আতঙ্ক বাংলাদেশেও। এতে সবাই নিজ নিজ গৃহে অবস্থান করছেন।

আর এ অবস্থায় সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষরা পড়েছেন বিপাকে। ঘর থেকে বের হতে না পেরে খাদ্য সংকটে ভুগছে অনেক পরিবার।

এমন অবস্থায় ফ্রি সবজির দোকান নিয়ে বসেছেন দিনাজপুরে নবাবগঞ্জের গোলাপগঞ্জ ইউনিয়ানের জগন্নাথপুর গ্রামের ইয়াসিন আলীর দুই ছেলে আহসান হাবিব ও সাহাজুল ইসলাম। দেশের এমন পরিস্থিতিতে খেটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়াতে এমন উদ্যোগ নিয়েছেন দুই ভাই।

মানবতার নজির তৈরি করেছে দু ভাই

জানা গেছে, নবাবগঞ্জ বাজারে আহসান ও সাহাজুল ইসলামের ছোট কসমেটিক দোকান রয়েছে। এই দোকানের ওপর চলে তাদের সংসার। পাশাপাশি নবাবগঞ্জ কলেজে দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়াশোনা করছেন তারা।

আহসান ও সাহাজুল ইসলাম জানান,‘আমরা আমাদের নিজ উদ্যোগে আমাদের গ্রামে সব মেহনতি মানুষের মধ্যে প্রতিদিন বিনামূল্যে কাঁচা বাজার (শাকসবজি) বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছি।

যত দিন দেশের এই করুণ অবস্থা চলতে থাকবে, ততদিন আমাদের এই কার্যক্রম চলতে থাকবে। যারা অভাবগ্রস্থ আছেন, লজ্জা না করে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করুন। আপনাদের গোপনীয়তা রেখে আমরা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেব।’ ঘর থেকে বের হতে সরকার থেকে নিষেধ আছে। তাই এই গরিব মানুষদের কথা ভেবে আমরা দুই ভাই ও বাবা মিলে ফ্রি শাকসবজির দোকান দিয়েছি।

তিনি জানান, প্রতিদিন বিরামপুর বাজার থেকে এক হাজার টাকার শাকসবজি কিনে এনে বিকাল ৩টায় দোকানে বসছি। এতে অনেকেই উপকৃত হচ্ছেন।