ঢাকা ০৬:৪৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মেঝেতে পড়ে ছটফট করে মারা গেলেন সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা

প্রতীকী ছবি

স্টাফ রিপোর্টারঃ  করোনায় আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হওয়ার পরে কোভিড-১৯ উপসর্গ নিয়ে সাভারে হোম আইসোলেশনে থাকা আব্দুল মান্নান (৬৫) নামে পুলিশের অবসরপ্রাপ্ত এক উপ-পরিদর্শকের (এসআই) মৃত্যু হয়েছে।শনিবার (০৯ মে) সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সায়েমুল হুদা মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গত ২২ এপ্রিল তার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপর তাকে বাড়িতেই আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল।

গতকাল শুক্রবার (০৮ মে) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে সাভার পৌর এলাকার নিজ বাড়িতে তার মৃত্যু হয়। এর এক দিন আগে বৃহস্পতিবার (৭মে) দ্বিতীয় দফায় তার নমুনা পরীক্ষার ফলাফল করোনা নেগেটিভ ছিল।

ডা. সায়েমুল হুদা বলেন, আইইডিসিআর থেকে খরব পাওয়ার পরে তাকে আমরা বাড়িতে পর্যবেক্ষণে রেখে চিকিৎসা দিচ্ছিলাম। তার পরিবারের সদস্যরাও তাই চাচ্ছিলেন। দ্বিতীয়বার নমুনা পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ। তাই এটি স্বাভাবিক মৃত্যু বলা যেতে পারে৷

তবে আব্দুল মান্নানের স্ত্রী রিজিয়া মান্নান বলেন, দ্বিতীয় দফায় রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও করোনার উপসর্গ নিয়েই তার মৃত্যু হয়েছে। তীব্র জ্বর এসেছিল। ফ্লোরে পড়ে গিয়ে ছটফট করে মারা যান তিনি। হাসপাতালে নেওয়ার সময় পাইনি আমরা।

তিনি আরও বলেন, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা করতে দেওয়া হয়েছিল। গত ২২ এপ্রিল রিপোর্ট পজিটিভ আসে। বাড়িতেই বারডেম হাসপাতালের চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ চলছিল।

অক্সিজেনও দেওয়া হচ্ছিল। সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চিকিৎসক দল এসে হাসপাতালে নিতে চেয়েছিল, কিন্তু আমরা রাজি হইনি।

 

ট্যাগস

আলিশান চাল, নওগাঁ

বিজ্ঞাপন দিন

মেঝেতে পড়ে ছটফট করে মারা গেলেন সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা

আপডেট সময় ০৪:২৪:৪৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ৯ মে ২০২০
স্টাফ রিপোর্টারঃ  করোনায় আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হওয়ার পরে কোভিড-১৯ উপসর্গ নিয়ে সাভারে হোম আইসোলেশনে থাকা আব্দুল মান্নান (৬৫) নামে পুলিশের অবসরপ্রাপ্ত এক উপ-পরিদর্শকের (এসআই) মৃত্যু হয়েছে।শনিবার (০৯ মে) সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সায়েমুল হুদা মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গত ২২ এপ্রিল তার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপর তাকে বাড়িতেই আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল।

গতকাল শুক্রবার (০৮ মে) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে সাভার পৌর এলাকার নিজ বাড়িতে তার মৃত্যু হয়। এর এক দিন আগে বৃহস্পতিবার (৭মে) দ্বিতীয় দফায় তার নমুনা পরীক্ষার ফলাফল করোনা নেগেটিভ ছিল।

ডা. সায়েমুল হুদা বলেন, আইইডিসিআর থেকে খরব পাওয়ার পরে তাকে আমরা বাড়িতে পর্যবেক্ষণে রেখে চিকিৎসা দিচ্ছিলাম। তার পরিবারের সদস্যরাও তাই চাচ্ছিলেন। দ্বিতীয়বার নমুনা পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ। তাই এটি স্বাভাবিক মৃত্যু বলা যেতে পারে৷

তবে আব্দুল মান্নানের স্ত্রী রিজিয়া মান্নান বলেন, দ্বিতীয় দফায় রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও করোনার উপসর্গ নিয়েই তার মৃত্যু হয়েছে। তীব্র জ্বর এসেছিল। ফ্লোরে পড়ে গিয়ে ছটফট করে মারা যান তিনি। হাসপাতালে নেওয়ার সময় পাইনি আমরা।

তিনি আরও বলেন, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা করতে দেওয়া হয়েছিল। গত ২২ এপ্রিল রিপোর্ট পজিটিভ আসে। বাড়িতেই বারডেম হাসপাতালের চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ চলছিল।

অক্সিজেনও দেওয়া হচ্ছিল। সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চিকিৎসক দল এসে হাসপাতালে নিতে চেয়েছিল, কিন্তু আমরা রাজি হইনি।