ঢাকা ০৬:২৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নববর্ষের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর ‘না’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (ছবি : সংগৃহীত)

স্টাফ রিপোর্টারঃ  করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে আসন্ন বাংলা নববর্ষে কোনো প্রোগ্রাম করা যাবে না বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।তবে তিনি বলেন, ঘরে বসে রেডিও-টেলিভিশনে অনুষ্ঠান হবে বা সোশ্যাল মিডিয়ায় উদযাপন করা যাবে।

এ সময় করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই কৃষিকাজ ও পণ্য সরবরাহ স্বাভাবিক রাখার আহ্বান জানান তিনি।

রবিবার (১২ এপ্রিল) সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে ‘করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) পরিস্থিতি’ নিয়ে বরিশাল ও খুলনা বিভাগের জেলাগুলোর কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, নববর্ষের (১৪ এপ্রিল) সব অনুষ্ঠান-বাইরে কোনো প্রোগ্রাম করা যাবে না। ঘরে বসে রেডিও-টেলিভিশনে অনুষ্ঠান হবে বা সোশ্যাল মিডিয়ায় উদযাপন করা যাবে। কিন্তু কোনো জনসমাগম করা যাবে না। জনসমাগম করলে এই ভাইরাস সংক্রমণ ছড়িয়ে যাবে। সব অনুষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

ভিডিও কনফারেন্সে গণভবন প্রান্তে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস।

বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতারসহ কয়েকটি বেসরকারি টিভি সরাসরি সম্প্রচার করছে প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্স।

ট্যাগস

আলিশান চাল, নওগাঁ

বিজ্ঞাপন দিন

নববর্ষের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর ‘না’

আপডেট সময় ১২:০৪:৫০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ এপ্রিল ২০২০

স্টাফ রিপোর্টারঃ  করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে আসন্ন বাংলা নববর্ষে কোনো প্রোগ্রাম করা যাবে না বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।তবে তিনি বলেন, ঘরে বসে রেডিও-টেলিভিশনে অনুষ্ঠান হবে বা সোশ্যাল মিডিয়ায় উদযাপন করা যাবে।

এ সময় করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই কৃষিকাজ ও পণ্য সরবরাহ স্বাভাবিক রাখার আহ্বান জানান তিনি।

রবিবার (১২ এপ্রিল) সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে ‘করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) পরিস্থিতি’ নিয়ে বরিশাল ও খুলনা বিভাগের জেলাগুলোর কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, নববর্ষের (১৪ এপ্রিল) সব অনুষ্ঠান-বাইরে কোনো প্রোগ্রাম করা যাবে না। ঘরে বসে রেডিও-টেলিভিশনে অনুষ্ঠান হবে বা সোশ্যাল মিডিয়ায় উদযাপন করা যাবে। কিন্তু কোনো জনসমাগম করা যাবে না। জনসমাগম করলে এই ভাইরাস সংক্রমণ ছড়িয়ে যাবে। সব অনুষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

ভিডিও কনফারেন্সে গণভবন প্রান্তে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস।

বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতারসহ কয়েকটি বেসরকারি টিভি সরাসরি সম্প্রচার করছে প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্স।